“বীর বাল দিবস” পালিত হবে ২৬ ডিসেম্বর, শ্রী গুরু গোবিন্দ সিং-এর ৩৫০তম জন্মবার্ষিকীতে বড় ঘোষণা মোদীর

20

মহানগর ডেস্ক: আজ রবিবার দিন সকালেই সামাজিক মাধ্যমে এক বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি টুইট করে লেখেন, “আজ শ্রী গুরু গোবিন্দ সিং-এর জন্ম জয়ন্তী। আজকের এই শুভ দিনে আমি এটা জানাতে পেরে সম্মানিত বোধ করছি যে, এই বছর থেকে ২৬ ডিসেম্বর দিনটি ‘বীর বাল দিবস’ হিসেবে পালিত হবে”। আজ দেশের এক বীর যোদ্ধা কে সম্মান জানিয়ে নিজের দিন শুরু করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

গুরু গোবিন্দ সিং এমন একজন ব্যক্তিত্ব যিনি মাত্র নয় বছর বয়সে পিতা গুরু তেগ বাহাদুরের স্থলাভিষিক্ত হন। তিনি শিখ জাতির নেতৃত্ব দিয়েছেন। একাধারে যোদ্ধা, কবি ও দার্শনিক ছিলেন। শিখ সমাজ তাঁরই আদর্শের প্রতীক। তিনি উচ্চ শিক্ষার সঙ্গে অশ্ব চালানো ও যুদ্ধবিদ্যায় পটু ছিলেন। এছাড়া তিনি ছিলেন খালসা বংশের প্রতিষ্ঠাতা। সাল ১৭০৮, ২৭ অক্টোবর শিখ ধর্মের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ গুরু গ্রন্থ সাহিবকে শিখদের পরবর্তী এবং চিরস্থায়ী গুরু হিসেবে ঘোষণা করেন শ্রী গুরু গোবিন্দ সিং। এমনকি এটিকে শিখদের পবিত্র পাঠ্য হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন।

তাঁর ঐতিহ্য অত্যন্ত নিষ্ঠাভরে মেনে চলে শিখ প্রজাতির মিনুষরা। তাঁর ঐতিহ্য আজও শিখ প্রজাতির মধ্যে জ্বলজ্বল করে। আর এই বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বর জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে এক বড় ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। উচ্ছ্বাস শিখ প্রজাতির মানুষের মধ্যে। পাশাপাশি তিনি জানান, “গুরু গোবিন্দ সিং জির বার্তা বহু মানুষকে আকৃষ্ট করেছে। আমাদের সরকার যে তাঁর ৩৫০তম জন্মবার্ষিকী পালন করার সুযোগ পাচ্ছে, তাতেই আমি গর্বিত”। এদিন পাটনায় ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই ছবি টুইটারে পোস্টও করেছেন।

শ্রী গুরু গোবিন্দ সিং জি’কে ঘিরে রয়েছে অনেক ঐতিহ্য। যা পুরো দায়িত্ব সহকারে মেনে চলে শিখ প্রজাতি। ছোটো থেকেই তিনি অত্যন্ত সাহসী যোদ্ধা ছিলেন। তাই সমাজে তাঁকে আদর্শ পৌরুষের প্রতীক বলা হয়। আর এই আদর্শ পুরুষকে আজ সম্মান জানালেন পশ্চিমবঙ্গের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।