Home Bengal বিদেশি মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইনে দিল্লিতে মহুয়াকে তলব ইডির!

বিদেশি মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইনে দিল্লিতে মহুয়াকে তলব ইডির!

by Sibapriya Dasgupta
23 views

মহানগর ডেস্ক : ভোটের মুখে ফের আগামী ২৮ মার্চ বিদেশি মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইনে কৃষ্ণনগরের তৃণমূল প্রার্থী মহুয়া মৈত্রকে তলব করল এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট বা ইডি। অতীতেও এই একই মামলায় তৃণমূল নেত্রীকে তলব করেছিল ইডি। কিন্তু সেই সময় হাজিরা এড়িয়ে গিয়েছেন মহুয়া। বিদেশি মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন লঙ্ঘনের একটি মামলায় তাঁকে তলব করা হয়েছে মহুয়াকে, এমনটাই ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে।

তবে শুধু মহুয়াই নয়, এই একই মামলায় ব্যবসায়ী দর্শন হীরানন্দানিকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকেছে ইডি। তবে তিনি বৃহস্পতিবার যাবেন কি না, সেটা এখনও স্পষ্ট নয়। এই মামলায় এর আগে দু’বার দর্শন হীরানন্দানিকে দিল্লিতে ডেকে পাঠিয়েছিল ইডি।

ইডি সূত্রে খবর, বিদেশি মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইনে মহুয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। তদন্তকারী অফিসারদের নজরে বিদেশি মুদ্রা লেনদেনের কয়েকটি ঘটনা এসেছে। একটি নন-রেসিডেন্ট এক্সটারনাল বা এনআরই অ্যাকাউন্টের লেনদেনও তাঁদের নজরে রয়েছে ইডির। সেই সংক্রান্ত বিষয়েই জিজ্ঞাসাবাদ করতে মহুয়া এবং দর্শনকে তলব করা হয়েছে বলেই ইডি সূত্রে খবর।

সংসদে “ঘুষের বিনিময়ে প্রশ্ন”কাণ্ডে ইতিমধ্যে মহুয়া মৈত্রর বিরুদ্ধে তদন্ত করছে সিবিআই। গত ডিসেম্বরে লোকসভার সাংসদ পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রকে। মহুয়াকে বহিষ্কার করার জন্য সুপারিশ করেছিল লোকসভার এথিক্স কমিটি। ৪৯৫ পৃষ্ঠার রিপোর্ট তারা জমা দেয় মহুয়ার বিরুদ্ধে। ওই রিপোর্ট পড়ে দেখার জন্য সময় চেয়েছিল তৃণমূল। কংগ্রেস এবং অন্য বিরোধী দলগুলির তরফেও স্পিকারের কাছে সময়ের জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল কিন্তু স্পিকার কাউকে সেই সময় দেননি। বহিষ্কারের পর মহুয়া জানিয়েছিলেন, তিনি এই ঘটনার শেষ দেখে ছাড়বেন। আগামী ৩০ বছর লোকসভার ভিতরে এবং বাইরে লড়াই করবেন বলেও মহুয়া হুঁশিয়ারি দেন। এই বহিষ্কারের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনি সুপ্রিম কোর্টেও যান। এই মামলাটি এখনও শীর্ষ আদালতে বিচারাধীন।

লোকসভার এথিক্স কমিটি যে রিপোর্ট  তৃণমূলের সাংসদের বিরুদ্ধে দিয়েছিল, তাতে লোকসভার লগইন আইডি অন্যের সঙ্গে ভাগ করে নেওয়ার বিষয়টিকে “অনৈতিক আচরণ” এবং “সংসদের অবমাননা” হিসাবে উল্লেখ করা হয়। এথিক্স কমিটির রিপোর্টে মহুয়াকে কড়া শাস্তি দেওয়ার সুপারিশও করা হয়। রিপোর্টে আরও সুপারিশ করা হয়, ওই বিরোর্টে উল্লেখ করা হয়, মহুয়ার সাংসদ হিসাবে পদ যেন খারিজ করা হয়। রিপোর্টে মহুয়ার বিরুদ্ধে সরকারি তদন্তের কথাও সুপারিশ করা হয়েছে। তাতে মহুয়া এবং দর্শনের মধ্যে নগদ অর্থ লেনদেনের বা “মানি ট্রেল”-এরও তদন্ত করানোর সুপারিশ করা হয়। রিপোর্টে দাবি, ওই আর্থিক বিষয়ে তদন্ত করার মতো প্রযুক্তিগত কাঠামো কমিটির নেই, তাই  সরকার এই ঘটনার তদন্ত করে।

এর মধ্যেই গত ১৯ মার্চ “সংসদে ঘুষ নিয়ে প্রশ্ন”কাণ্ডে মহুয়ার বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয় লোকপাল। সেই নির্দেশের ভিত্তিতে মহুয়ার বিরুদ্ধে এফআইআরও দায়ের করে সিবিআই। এর পরে শনিবার সকালে মহুয়ার কলকাতার বাড়ি এবং অফিস মিলিয়ে মোট চারটি আস্তানায় তল্লাশি অভিযান চালায় সিবিআই। এবার ২৮ মার্চ দিল্লিতে ইডি মহুয়াকে তলব করল। এখন দেখার মহুয়া ভোটের প্রচার ছেড়ে দিল্লিতে ইডির হাজিরায় যান কি না। কেন না অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ভোটপর্বে তাঁকে যেন তদন্তের জন্য কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা দিল্লিতে না ডাকে সেই আবেদন শীর্ষ আদালতে জানান এবং আদালত তাঁকে রক্ষাকবচ দেয়। মহুয়ার ক্ষেত্রে দল কি সেই পদক্ষেপ করবে? তেমন কোনও আভাস কিন্তু এখনও তৃণমূল সূত্রে পাওয়া যায়নি।

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved