Home Bengal “২০২১-এর নির্বাচনের আগেই দল টাকা তোলার কথা জানত, ব্যবস্থা নেয়নি”, বিস্ফোরক কুণাল

“২০২১-এর নির্বাচনের আগেই দল টাকা তোলার কথা জানত, ব্যবস্থা নেয়নি”, বিস্ফোরক কুণাল

by Mahanagar Desk
374 views

মহানগর ডেস্ক : “পার্থ চট্টোপাধ্যায় চাকরির জন্য টাকা তুলছে, এই খবর ২০২১-এর নির্বাচনের আগে দলের কাছে ছিল। দল সময় মতো ব্যবস্থা নেয়নি। দল সব জানত, পার্থ চট্টোপাধ্যায় নিজে এবং আর কাদের দিয়ে টাকা তোলার কাজ করছে”, বললেন সদ্য তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বহিস্কৃত কুণাল ঘোষ।

কুণাল ঘোষ বুধবার এবিপি আনন্দে এক সাক্ষাৎকারে এই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন। কুণাল বলেন , ” আমি তখন জেলে। সেই সময় জেলে একজন আমায় এসে বলেন, তাঁর এক আত্মীয়ের চাকরির জন্য সাড়ে সাত লাখ টাকা দিতে হবে। সেই ব্যক্তি আমায় বলেন, আমি ৫ হাজার টাকা দিয়েছি, আপনি একটু চিরকুটে লিখে দিলে আড়াই লাখ টাকা মকুব হয়ে যাবে। আমি তখনই জানতে পারি কে এই টাকা নিচ্ছে। সেই ব্যক্তি এখনও রাজ্য মন্ত্রিসভার সদস্য, দাপটের সঙ্গে কাটাচ্ছে। আমি তখন জেলে ওই ব্যক্তিকে বলি আমি লিখে দিলে আপনার কাজটা আটকে যাবে। দলের সঙ্গে আমার সম্পর্ক শীতল। আমি তাই বলছি, দল আমায় যেন বাধ্য না করে যাতে আমি এই নাম বলতে বাধ্য হই। যে ছেলে মেয়েদের চাকরি হয়নি, রাস্তায় বসে, তাঁরা মধ্যবিত্ত বাড়ির। আমি তাঁদের জন্য এজি-র কাছে গিয়েছি। দল কিন্তু পারত এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে, নেয়নি।”

কুণাল এদিন সাক্ষাৎকারে বলেন, “আমি দলের পক্ষে থাকলেও, দলে থাকলেও, দলকে দেখিয়ে দিলেও যে আমি এত কিছুর পর দলে ফিরে আসতে পারি। আমার বিরুদ্ধে তৎকালীন পুলিশ কর্তা রাজীব কুমার মিথ্যা মামলা সাজিয়েছিল। তবে এই মুহূর্তে আমি বলতে চাইছি না বাকিটা। আমি তৃণমূলে ছিলাম, আছি, থাকতে চাই। তৃণমূল যদি শেষ সুতোটাও ছিড়ে ফেলে তাও আমি বলব আমি একা বেঁচে থাকতে চাই। আমি মমতা দি, অভিষেককে ভালোবাসি, শ্রদ্ধা করি। আমি তাঁদের বোঝাতে চাই আমি একা থাকতে পারি, চক্রান্ত করে তখন আমাকে গ্রেফতার করা হয়।”

সাক্ষাৎকারে কুণাল বলেন, “সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় জোড়া মোমবাতি চিহ্নে তৃণমূলকে পরাজিত করেছিলেন। আমিই তাঁকে মমতাদির কাছে নিয়ে গিয়ে তৃণমূলে ফেরাই। সুদীপদা জেলায় একটা অফিস করেনি, করতে পারেনি। তাঁকে বাড়িতে গিয়ে দলের কর্মীরা ডাকলে ঘরের ভেতরে সুদীপদার গলা পাওয়া যায় কিন্তু তাঁর পিএ বলে দেয় সুদীপদা বাড়ি নেই।”

কুণাল এদিন বলেন, “আমি তাপসদার সঙ্গে এক মঞ্চে থাকার পর একজন সুদীপদাকে হোয়াটসঅ্যাপ করে বলেন, কুণাল এসব করছে, দিদিকে জানাও, প্রাতন মুখ্য সচিব দ্বিবেদীকে দিয়ে দিদিকে বলাও। সুদীপদা স্মাইলি দিয়ে তাঁকে উত্তর দেন, দিচ্ছি। এই হোয়াটসঅ্যাপ যিনি সুদীপদাকে করেছেন তিনিই আবার আমায় স্ক্রিনশট পাঠিয়ে দেন। আমি নামটা এখন বলছি না কে এই হেয়াটসঅ্যাপ করেছেন আমায়, সেটা পরে হবে।”

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved