Home Bengal বেআইনি বাড়ির নিয়ে সাংবাদিক বৈঠকের মধ্যেই প্রাক্তন বিচারপতিকে ফোন মেয়রের, তারপর?

বেআইনি বাড়ির নিয়ে সাংবাদিক বৈঠকের মধ্যেই প্রাক্তন বিচারপতিকে ফোন মেয়রের, তারপর?

by Sibapriya Dasgupta
20 views

মহানগর ডেস্ক : কলকাতা পুর এলাকায় বেআইনি বহুতল নির্মাণ নিয়ে বৃহস্পতিবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক বৈঠক করছিলেন সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি অশোক গঙ্গোপাধ্যায়। সেই সাংবাদিক বৈঠকে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি যখন গার্ডেনরিচ সহ কলকাতার বিভিন্ন এলাকার বেআইনি নির্মাণ নিয়ে কথা বলছেন, তখন আচমকা অশোক গঙ্গোপাধ্যায়ের মোবাইলে ফোন করে বসেন কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিমের! মিনিট তিন-চারেকের কথোপকথনে বাদানুবাদে জড়ালেন দু’জনই। উভয়ের কথোপকথনে বোঝা যাচ্ছিল ফিরহাদ বেআইনি নির্মাণের দায় চাপানোর চেষ্টা করেন বামফ্রন্ট সরকারের ঘারে, প্রাক্তন বিচারপতিকে তখন বলতে শোনা যায়, বামফ্রন্ট তো ১২ বছর ক্ষমতায় নেই, আপনারা সেই বাড়িগুলো এতোদিন ভাঙেননি কেন? গার্ডেনরিচের বাড়িটাতো বছর দেড় ধরে তৈরী হচ্ছে।

ফিরহাদ হাকিমের বিধানসভা কেন্দ্রের গার্ডেনরিচে সম্প্রতি একটি বহুতল ভেঙে বিপর্যয়ের ফলে ১২ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে বেআইনি নির্মাণ নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করছিলেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি। প্রশাসনের চোখের সামনে যে ভাবে একের পর এক বেআইনি নির্মাণ হয়ে চলেছে, তা নিয়ে সরব হয়েছিলেন প্রাক্তন বিচারপতি। বেআইনি নির্মাণের নেপথ্যে সিন্ডিকেট চক্রেরও অভিযোগ তুলছেন অশোক গঙ্গোপাধ্যায়। প্রাক্তন বিচারপতি বলেন, গার্ডেনরিচে যেখানে এই বেআইনি নির্মাণ হচ্ছে সেখানকার বিধায়ক ফিরহাদ হাকিম। তিনি পুর ও নগর উন্নয়ন মন্ত্রী এবং কলকাতার মেয়র। এই অভিযোগ যখন একের পর এক তুলছেন অশোক গঙ্গোপাধ্যায় এমন সময় আচমকাই তাঁকে ফোন করে বসেন ফিরহাদ হাকিম। সাংবাদিক সম্মেলন চলাকালীন ফোন আসার ফলে সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরার সামনেই অশোক গঙ্গোপাধ্যায় এবং ফিরহাদ হাকিমের মধ্যে সেই ফোনে কথা কাটাকাটি হয়। ফোনে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে বলতে শোনা যায়, ‘‘বাম আমলের বাড়ি এখনও রয়েছে কেন? কেন ভেঙে দাওনি?’’ প্রাক্তন বিচারপতি মেয়রকে জানান, তাঁর এলাকাতেই বেআইনি নির্মাণ হয়ে চলেছে। অথচ প্রশাসন কিছুই করছে না। ফোনে তিনি বলেন, ‘‘তুমি এসো আমার বাড়িতে। ছাদে নিয়ে গিয়ে দেখাব গলির মধ্যে কী ভাবে পাঁচ তলা বাড়ি গজিয়ে উঠেছে। এটা হলে পরিবেশ দূষিত হয়। আলো-বাতাস আসতে পারে না।’’

ফোনের ও পারে ফিরহাদ কী বলেছেন, তা যদিও শোনা যায়নি। পরে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, ‘‘সব তো শুনলেন, বেআইনি নির্মাণ নিয়ে এই প্রেস কনফারেন্সটায় কাজ হয়েছে, এটার দরকার ছিল। আমি যখন প্রেস কনফারেন্স করছি, তখনই ফিরহাদ আমাকে বলেন, ওই নির্মাণ সব বাম আমলের। আমি তখন ওকে বলেছি, ভেঙে দাওনি কেন ও সব! ও তখন বলে, আমি জানতাম না। আমাকে জানাননি কেন? আমি বলি, তোমার প্রতিনিধি আছে তো!’’

কলকাতা পুরসভার ৭৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা হলেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি অশোক গঙ্গোপাধ্যায়। কবিতীর্থ পার্ক এলাকায় থাকেন তিনি। ঘটনাচক্রে, সেই এলাকা ফিরহাদ হাকিমের বিধানসভা কেন্দ্র কলকাতা বন্দরের মধ্যেই রয়েছে। অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এক সময়ে রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারপার্সন ছিলেন। সেই সময় রাজ্য প্রশাসনের সঙ্গে তাঁর মতবিরোধ বাধে। এর পরেই মানবাধিকার কমিশনের পদ থেকে সরে যেতে হয় তাঁকে। এর পর থেক শাসক-বিরোধী বলেই পরিচিত অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি। পুরসভা সূত্রে খবর, কলকাতা পুর এলাকায় বেআইনি নির্মাণের সূচনা যে বাম আমলে শুরু হয়েছিল, অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে ফোন করে সে কথাই জানিয়েছিলেন ফিরহাদ। বেআইনি নির্মাণ যে হয়ে চলেছে, সে কথা অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি কেন ফিরহাদকে জানাননি, সে প্রশ্নও তুলেছেন মেয়র।

সাংবাদিক বৈঠকে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে বলতে শোনা গিয়েছে, ‘‘তোমাকে কী ভাবে পাব আমি? তোমার প্রতিনিধি তো আছে। তোমাদের প্রশাসন কাজ করছে না। আমার এলাকায় ভেঙে দিয়ে গিয়েছিল। পরে আবার দোতলা বাড়ি পাঁচ তলা হয়ে গেল!’’ মেয়রের কাছে স্থানীয় কাউন্সিলরের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ উগরে দেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। ফোনে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‘এক দিকে নির্মলা সীতারামন টাকার অভাবে ভোটে লড়তে পারছেন না। আর অন্য দিকে তোমার কাউন্সিলর পাঁচ কোটি টাকার গাড়ি চড়ে আসে।’’

অশোক গঙ্গোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, অসাধু প্রোমোটার চক্র, অবৈধ টাকা উড়ছে। যারা এসব বেআইনি বাড়ি কিনেছেন তারা একবার প্রতারিত হয়েছেন, বাড়ি ভাঙার ফলে আবারও তারা প্রতারিত হবেন।

প্রসঙ্গত, গার্ডেনরিচে বহুতল বিপর্যয়ের পর থেকে মেয়র টানা বলে চলেছেন, “এসব বেআইনি নির্মাণ বাম আমলের।” অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির ফোনে ফিরহাদ হাকিমকে বলেন, “এসব যদি বাম আমলে হয়ে থাকে তাহলে বেআইনি বাড়ি ভেঙে দাওনি কেন? এসব আমায় বলে লাভ কি? পাড়ায় পাড়ায় এসব হচ্ছে। দূষণ ছাড়ানো হচ্ছে, যারা দূষণ ছড়াচ্ছে তারা দায়ী। কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না, আমি এটা বললাম।”

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved