Home Bengal নন্দীগ্রামের গণহত্যা শুভেন্দু-সিপিমের চক্রান্ত: মমতা

নন্দীগ্রামের গণহত্যা শুভেন্দু-সিপিমের চক্রান্ত: মমতা

by Mahanagar Desk
46 views

মহানগর ডেস্ক : ১৬ মে,  ২০২৪। তমলুক থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, “সিপিএমের সঙ্গে চক্রান্ত করে শুভেন্দু অধিকারী নন্দীগ্রামের গণহত্যা সংঘটিত করেছিলেন।”
আজ থেকে ঠিক ১৭ বছর আগে এমনই এক ১৬ মে, ২০০৭ সালে, কলকাতার একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, “নন্দীগ্রামের জমিরক্ষা কমিটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন শুভেন্দু অধিকারী, ও ভালো ছেলে। সিপিএম ওকেই মারতে চায়, মুখে শান্তির কথা বলে।”
এখন প্রশ্ন কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য মানুষ বিশ্বাস করবে? ২০০৭ সালের ১৬ মে তারিখের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বতব্য না কি ১৬ মে, ২০২৪ তারিখের তমলুকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বতব্য?

এই জটিল রাজনীতির পরিমণ্ডলে বাংলার মানুষ এখন দিগভ্রান্ত। এবার আসা যাক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ১৬ মে, ২০২৪-এর তমলুকের বক্তব্যে। মমতার এই বক্তব্য যদি সত্যি হয় তাহলে প্রশ্ন থাকছে কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারী নন্দীগ্রাম গণহত্যার নায়ক জানার পরেও এই শুভেন্দু অধিকারীকেই ২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতায় এসে সেই মমতা একাধিক দফতরের মন্ত্রীত্ব দেন? কি ভাবে একাধিক সরকারি কমিটির শীর্ষে বসান? অথচ এই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই ১৬ মে, ২০২৪, বৃহস্পতিবার তমলুক থেকে বলেছেন বাপ-বেটা (পড়ুন শিশির অধিকারী, শুভেন্দু অধিকারী) নন্দীগ্রামে গণহত্যার পর ১৫ দিন লুকিয়ে ছিলেন, ঘর থেকে বেরোননি।

এটা যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আসল উপলব্ধি হয় তাহলে প্রশ্ন উঠছে কেন তিনি নন্দীগ্রাম গণহত্যার অন্যতম অভিযুক্তকে রাজ্য মন্ত্রিসভায় একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দফতরের দায়িত্ব এবং ১৪টি সরকারি কমিটির মাথায় বসিয়ে ছিলেন? তাহলে কি এটা প্রমাণ হয় না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সব জানতেন, তারপরও কি ভাবে তিনি শুভেন্দুকে রাজ্য মন্ত্রিসভায় আর শিশিরকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় পাঠালেন? আজও শিশির অধিকারী তাহলে কি ভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূলের সাংসদ? কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে বহিস্কার করেননি? রাজ্যনৈতিক বিশ্লেষকরা কিন্তু আজ ১৬ মে এবং ১৭ বছর আগের ১৬ মে তারিখের শুভেন্দু অধিকারী সম্পর্কে মমতার বক্তব্য বিশ্লেষণ করে বলছেন, এসব জেনেওনযখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এতোকাল নীরব ছিলেন তার অর্থ একটাই তিনিও নন্দীগ্রাম গণহত্যার জন্য দায়ী। এই অবস্থায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি বলবেন? আর পরবর্তী তিনটি পর্বে বাংলার ভোটে জনতা কাকে ভোট দেবেন।

এদিকে ১৬ মে, ২০২৪-এর মমতার বক্তব্য শুনে শিশির অধিকারী বলেছেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সব জানতেন।” আর শুভেন্দু অধিকারী বলেছেন, “ওনার মুখ আর মুখোশ কোনটা মানুষ বুঝে গেছেন। ওনার সব প্রশ্নের জবাব শুক্রবার হলদিয়ায় দেব। ওনাকে প্রাক্তন করব আর ওনার ভাইপোকে জেলে পাঠাব।”

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved