Home Bengal “আমি পৈত্রিক সূত্রে পেয়েছি”, রামকৃষ্ণও খিস্তি দিত! ফের বিস্ফোরক রূপম ইসলাম

“আমি পৈত্রিক সূত্রে পেয়েছি”, রামকৃষ্ণও খিস্তি দিত! ফের বিস্ফোরক রূপম ইসলাম

by Sushama
50 views

মহানগর ডেস্কঃ গত ২৫ শে জানুয়ারি ছিল রূপম ইসলামের জন্মদিন। গায়ককে ঘিরে ধরে ভক্তরা। কেক কাটার আগে ফের বিতর্কে মুখ খুললেন গায়ক। ‘আমি দেওয়ার পর থেকে ওটাই বিখ্যাত হয়ে গেছে’। আমি এটাই দিই কারণ এটা আমার বাবা দিতেন। এটা পৈত্রিক সূত্রে পেয়েছি। এবার আমি যদি খারাপ হয়। তাহলে আমার বাবাও খারাপ!

সম্প্রতি, কল্যাণীতে শো করতে গিয়েছিলেন রূপম ইসলাম। স্টেজ থেকে নামার পর তাঁর বিশ্রামের প্রয়োজন ছিল। পিছনে ধাওয়া করতে থাকে ভক্তরা। করমর্দন থেকে শুরু করে সেলফি তোলার অনুরোধ করতে থাকেন তাঁরা। কিছু ক্ষেত্রে শালীনতার সীমা অতিক্রম করেন ফেলেন। এই ঘটনার পর একটি ভিডিও তুমুল ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। শিল্পীকে এমন রেগে যেতে দেখে অবাক ভক্তেরাও। সব মিলিয়ে যখন সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া। তখনই এসে গেল গায়কের জন্মদিন। ভক্তরা ভিড় করে ছুটে গেলেন রূপমের কাছে। ইন্ডাস্ট্রি থেকে নামীদামী শিল্পী বাদ যায়নি ফসিলস প্রেমী। সকলের উপস্থিতিতে হল গ্র্যান্ড পার্টি। ফুল, শুভেচ্ছাবার্তা, উপহার আর কেকে দিয়ে সাজানো টেবিলের বিপরীতে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষটা কি বললেন জানেন? রামকৃষ্ণও অনেক খিস্তি দিয়েছে! গালাগালি প্রসঙ্গে ফের সাফ জবাব রূপমের।

গায়ক জানান খারাপ ভালো তিনি যা বলেন সবটাই তাঁর মন থেকে আসে। প্রতিটি শো এর অভিনবত্ব থাকে তার মুখের কথায়। মঞ্চ থেকে যে তিনি গালাগালি বহুবার করেছেন। গায়কের ভিতর ও বাইরের কোনো পার্থক্য নেই। এরপর রূপমের কথায় উঠে আসে রামকৃষ্ণ পরমহংস দেবের কথা। রূপম বলেন রামকৃষ্ণ দেব যেমন অনেক ভালো কথা বলেছেন তেমন খিস্তিও দিয়েছেন। খারাপ টা বাদ দাও তাহলেই তাঁকে পাওয়া যাবে। তুমি যদি মনটা না খুলতে পারো তাহলে মন খোলা কথা আসবে না। আমাদের সমাজে যেসব কথা আছে সব বলব। তবে খুব একটা খারাপ কথা বলব না। মাঝারি বলব।

পরিশেষে নিজের হয়ে বলেন,’ আমি দেবত্ব বিশ্বাস করি না। মানুষ সত্ত্বাকে ভালোবাসতে হবে। সবসময় দেবত্ব চাই! খারাপ হও, ভালো হও, সব শেষে মানুষ হও। শয়তান নয়। সততার বিলাসিতা আর নয়। অনেক সময় এমন পরিস্থিতি আসে উপযুক্ত জবাব দিতে হয়। আর তখন যেই ভাষা আসবে সেই ভাষাতেই দেওয়া উচিত।’

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved