Home Bengal “মেয়র ফিরহাদ হাকিমের নাকের ডগায় এই ঘটনা ঘটে কী করে? গ্রেফতার করতে হবে স্থানীয় কাউন্সিলরকে”, দাবি শুভেন্দুর

“মেয়র ফিরহাদ হাকিমের নাকের ডগায় এই ঘটনা ঘটে কী করে? গ্রেফতার করতে হবে স্থানীয় কাউন্সিলরকে”, দাবি শুভেন্দুর

by Sibapriya Dasgupta
203 views

মহানগর ডেস্ক : গার্ডেনরিচে নির্মীয়মান বেআইনি বহুতল ভেঙে পড়ার ঘটনায় নিজের এক্স হ্যান্ডেলে ১৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের গ্রেফতারির দাবি জানালেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর প্রশ্ন, “মেয়র ফিরহাদ হাকিমের নাকের ডগায় এই ঘটনা ঘটে কী করে? ২০১০ সাল থেকে কলকাতা পুরসভার দায়িত্বে তৃণমূল। এই এলাকা মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের দুর্গ। তৃণমূল আমলে ৫ হাজার জলাভূমি বুজিয়ে জমির চরিত্র বদল করে এসব হচ্ছে।”

দিল্লিতে এখন রয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। শুভেন্দু তাঁর এক্স হ্যান্ডেলে লিখেছেন, “যখন একটি ৫-তলা ভবন গার্ডেনরিচ এলাকায় তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে, তখন কিছু প্রাসঙ্গিক প্রশ্নের উত্তরতো দিতে হবে।”

বিরোধী দলনেতা লোখেন, “প্রথমত, ধ্বংসাবশেষের নিচে আটকে পড়া লোকদের উদ্ধারের দিকে নজর দেওয়া উচিত। রাজ্য প্রশাসনের উদ্ধারকাজে আরও সাহায্যের প্রয়োজন হয়, তাদের অবিলম্বে এনডিআরএফ-এর সাথে যোগাযোগ করা উচিত।”

এই দুর্ঘটনার কারণ প্রসঙ্গে শুভেন্দু লেখোন, “এখন আসুন ভাবা যাক কোন কারণগুলি এই ধরনের বিপর্যয়ের কারণ  এবং কীভাবে কলকাতা মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশনের অবহেলায় এই বিশাল এলাকায় বসবাসকারী লোকেরা দুর্ভাগ্যজনক এই দুর্যোগের অপেক্ষায় দিন গোনেন।

প্রথমত, ২০১০ সাল থেকে বামফ্রন্টকে পরাজিত করে টিএমসি কলকাতা মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশনের বা কেএমসি-র ক্ষমতায় আসে। সেই থেকে ৫ হাজারটিরও বেশি জলাশয় অবৈধভাবে ভরাট করা হয়েছে এবং জমির আরিত্র বদল করে কেএমসি এলাকার মধ্যেই রূপান্তরিত হয়েছে।

স্থানীয় কাউন্সিলর, শাসকদলের কর্মী এবং স্থানীয় পুলিশের মধ্যে স্পষ্ট যোগসাজশ আছে, শীর্ষস্থানীয় তৃণমূল  নেতাদের তত্ত্বাবধানে, যখন এই ধরনের জলাশয়গুলি কোনও আইনি ও প্রশাসনিক ঝামেলার সম্মুখীন না হয়েই ভরাট করা হয় তখন সহজেই বোঝা যায় এই কাজের পিছনে কাদের হাত থাকতে পারে। এই ভাবে জলজমি বুজিয়ে কেএমসির কোনো অনুমোদিত পরিকল্পনা বা তত্ত্বাবধান ছাড়াই এই ধরনের জমিতে অবৈধ ভবন নির্মাণ করা হয়।”

ওই পোস্টে শুভেন্দু দাবি করেন, “খোদ গার্ডেনরিচ এলাকায় এই ধরনের ৮০০-এর বেশি অবৈধ নির্মাণ রয়েছে। এলাকাটি কেএমসি মেয়র ফিরহাদ হাকিমের দুর্গ। তিনি কি এখন বলতে পারেন তিনি এসব জানতেন না? এটা কি বিশ্বাসযোগ্য যে, তাঁর অজান্তেই তাঁর নাকের ডগায় এই ধরনের অবৈধ নির্মাণ হচ্ছে, এই বিষয়ে   তাঁর কেনও ধারণা ছিল না? <span;>অপরাধীর জন্য নিজেকে ত্রাণকর্তার ছদ্মবেশ ধারণ করা এবং ত্রাণ অভিযানের সময় ফুটেজ দখল করা কতটা লজ্জাজনক?

দ্বিতীয়ত, স্থানীয় কাউন্সিলরকে গ্রেফতার করার সময় এসেছে; ১৩৪ নং ওয়ার্ডের শামস ইকবাল এবং ধসে পড়া বাড়ির প্রমোটরের।

২০২১ সালের শেষ কর্পোরেশন নির্বাচনে শামস ইকবাল 134 নং ওয়ার্ডে, গার্ডেন রিচ এলাকায় ৯৮.২৮ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেন,  যা কলকাতা পুরসভার কাউন্সিলরদের মধ্যে জয়ের নিরিখে সর্বোচ্চ। <span;>তিনি অবৈধ নির্মাণের অবিসংবাদিত রাজা। তিনি একবার কেএমসি হেড অফিসে লাল রঙের অ্যাস্টন মার্টিন গাড়ি চালিয়ে শিরোনাম হয়েছিলেন। তাঁর চটকদার জীবনধারা এই মুহূর্তে ধ্বংসাবশেষের নিচে আটকে থাকা মানুষের জীবনের উপর নির্মিত। তাঁর চটকদার জীবনধারা এই মুহূর্তে ধ্বংসাবশেষের নিচে আটকে থাকা মানুষের জীবনের বিনিময়ে গড়ে উঠেছে। সম্প্রতি তিনি একটি বেন্টলি গাড়ি কিনেছেন, যার দাম ৫ কোটি টাকা। একজন কাউন্সিলর কীভাবে এত উপার্জন করতে পারেন তা ভাবতে পারেন!

তৃতীয়ত, আমি মৃতদের জন্য ৫ লক্ষ এবং আহতদের জন্য ১ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ যেটা রাজ্য ঘোষণা করেছে তা পর্যাপ্ত নয়, কারণ এটি সম্পূর্ণরূপে টিএমসি-র তৈরি বিপর্যয়। আমি দাবি করছি যে মৃতের পরিবারের আত্মীয়দের কমপক্ষে ৫০ লক্ষ এবং আহতদের কমপক্ষে ১০ লক্ষ টাকা দিতে হবে।

সবশেষে উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশনের লক্ষ্য করা উচিত যে কীভাবে তৃণমূল নেতারা, তিনি মেয়র বা মুখ্যমন্ত্রীই যেই হোন না কেন, সকলেই এখন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, কারণ সাধারণ নির্বাচনের ঘোষণার পরে আদর্শ আচরণবিধি কার্যকর হয়েছে, তাঁরা এখন প্রকাশ্যে আর্থিক ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করছে।

ভোট ঘোষণার পর ক্ষতিপূরণের পরিমাণের কোনও ঘোষণা শুধুমাত্র সরকারি কর্মকর্তাদের দ্বারা করা উচিত, রাজনৈতিক ব্যক্তিদের নয়।

এই মুহূর্তে, আমি নয়াদিল্লিতে আছি। আমার প্রার্থনা যারা এখনও ধ্বংসস্তূপের নীচে রয়েছে তাদের দ্রুত উদ্ধার করা হোক, মৃতদের পরিবারের সদস্যদের সাথে আমরা রয়েছি, আমাদের সমবেদনা রয়েছে।”

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved