মেয়র হবে কে?রাজনৈতিক মহলে শুরু জোর জল্পনা

36

মহানগর ডেস্ক :- বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক ভোটে জয়লাভ করে তৃতীয়বারের জন্য রাজ্যে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল কংগ্রেস । বাংলার মসনদে বসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তারপরে উপনির্বাচনেও বিপুল ভোটে জয়লাভ করে তৃণমূল কংগ্রেস । পৌরসভা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও সেই একই চিত্র । ইতিমধ্যেই কলকাতায় ভোট হয়ে গিয়েছে প্রকাশিত হয়েছে ফলাফল মেয়র পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিজের লোক বা কাছের লোক ফিরহাদ হাকিম । শিলিগুড়ি,বিধাননগর, চন্দননগর এবং আসানসোলেও সদ্য সমাপ্ত হয়েছে ভোট,প্রকাশিত হয়েছে ফলাফল ।বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠা নিয়ে ক্ষমতায় ফিরেছে তৃণমূল কংগ্রেস । কুপোকাত হয়েছে বিরোধীরা ।শিলিগুড়ির অভূতপূর্ব জয়ের পর গৌতম দেবকে মেয়রের দায়িত্ব দেওয়ার কথা বলেছেন। কিন্তু এখন প্রশ্ন এই তিন পুরনিগমের নতুন বোর্ডের মেয়র কে হবেন?

যেহেতু এই তিন পুরনিগম থেকেই নেত্রীর মুখের হাসি আরও চওড়া হয়েছে, তাই খুব স্বাভাবিক এবং সঙ্গত কারণেই এই তিন পুরনিগম থেকে সম্ভব্য মেয়র হিসেবে বিদায়ি বোর্ডের বিদায়ি মেয়রদের নাম নিশ্চিতভাবে উঠে আসছে। যেমন, বিধাননগর পুরনিগমের ক্ষেত্রে কৃষ্ণা চক্রবর্তী, আসানসোলের ক্ষেত্রে অমরনাথ চট্টোপাধ্যায় এবং চন্দননগরের ক্ষেত্রে রাম চক্রবর্তী। ফলে এই বিদায়ি মেয়রদের পুনরায় বেছে নেওয়ার বিষয়ে যেমন জল্পনা রয়েছে, ঠিক তেমনইভাবে তিন পুরনিগমের ক্ষেত্রেই উঠে আসছে বেশ কিছু নাম।

 

বিধাননগর পুরনিগমের ক্ষেত্রে উঠে আসছে সব্যসাচী দত্তের নাম। ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের আগে গেরুয়া শিবিরে নাম লিখেছিলেন তিনি কিন্তু পুনরায় তিনি ফিরে আসেন তার পুরনো দলে এর পরেই পৌরসভা নির্বাচনের টিকিট পান তিনি জিতেও যান ।তাই আগামী মেয়র হওয়ার দৌঁড়ে রয়েছেন তিনি তবে একদিকে সব্যসাচী দত্ত এবং অন্যদিকে কৃষ্ণ চক্রবর্তী ও সুজিত বসু – এই দ্বৈরথ যদি তুঙ্গে ওঠে, সে ক্ষেত্রে কীভাবে দলীয় ভারসাম্য বজায় রাখা যাবে সেই নিয়েও জোর চর্চা চলছে।

এর পাশাপাশি আসানসোলের ক্ষেত্রেও মূলত তিনটি নাম উঠে আসছে। তপন বন্দ্যোপাধ্যায়। পেশায় আইনজীবী।একইসঙ্গে মলয় ঘটকের ছোট ভাই অভিজিৎ ঘটক এবং বিদায়ি মেয়র অমরনাথ চট্টোপাধ্যায়ের নামও সম্ভব্য মেয়র হিসেবে উঠে আসছে। এছাড়া উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায় এবং অশোক রুদ্রের মতো নেতাদের নাম নিয়েও বেশ কিছু জল্পনা ঘোরাফেরা করছে, তবে সেগুলির পক্ষে তেমন জোরালো চর্চা হচ্ছে না।

চন্দননগরের ক্ষেত্রেও বিদায়ি বোর্ডের মেয়র রাম চক্রবর্তী অবশ্যই অন্যতম উল্লেখ্যযোগ্য নাম। এর পাশাপাশি চন্দননগরের প্রাক্তন বিধায়ক অশোক সাউয়ের ছেলে শুভজিৎ সাউ, পীযূষ বিশ্বাস, পার্থ সারথি দত্ত এবং ইন্দ্রনীল সেনের ঘনিষ্ঠ মুন্না আগরওয়ালকে নিয়েও একটি জল্পনা চলছে। এর পাশাপাশি শিলিগুড়ির ডেপুটি মেয়রের ক্ষেত্রে উঠে আসছে রঞ্জন শীল শর্মার নাম।

তবে জল্পনা কল্পনা থাকলেও আগামী শুক্রবার জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠক রয়েছে, সেই জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকেই মেয়রদের নাম চূড়ান্ত হবে