ফুলশয্যার রাতে নববধূকে কেন জাফরান মিশ্রিত দুধ দেওয়া হয় জানেন?

57
ফুলশয্যার রাতে নববধূকে কেন জাফরান মিশ্রিত দুধ দেওয়া হয় জানেন?

নিজস্ব প্রতিনিধি: ফুলশয্যার রাতে নববধূকে দেওয়া হয় জাফরান মিশ্রিত দুধ। সুপ্রাচীন কাল থেকেই হিন্দু সমাজে এই রীতি পালিত হয়ে আসছে।কিন্তু আমরা কেউই জানি না এই প্রথার পিছনে লুকিয়ে থাকা বৈজ্ঞানিক কারণটি ঠিক কী। আসুন, জেনে নিই হিন্দু ধর্মের এই প্রাচীন প্রথার বৈজ্ঞানিক ভিত্তিটা।

হিন্দু রীতিতে যাঁরা বিয়ে করেন, তাঁরা সবাই জানেন বিয়ের দিন উপোস করতে হয়। সারা দিন না খাওয়ার পরে সন্ধে কিংবা রাতে বিয়ে। শাস্ত্র মতে বিয়ে করতে হলে সময় লাগে অনেকটাই। বিয়ে শেষে নবদম্পতিকে ভাত খেতে দেওয়া হয়। পরের দিন কালরাত্রি। এদিন স্বামী-স্ত্রী একে অপরের মুখ দেখতে পারেন না। তার পরের দিন ফুলশয্যা। এদিন সকালে হয় ভাত-কাপড়ের অনুষ্ঠান। স্ত্রীর ভরণ পোষণের দায়িত্ব নেন তাঁর স্বামী। এদিন রাতেই হয় ফুলশয্যা।

রীতি অনুযায়ী, এদিন ফুল দিয়ে সাজানো হয় শোবার খাট। এই খাটেই জীবনের প্রথম যৌন অভিজ্ঞতা লাভ করেন নব দম্পতি। এদিনই তাঁদের দেওয়া হয় জাফরান মিশ্রিত দুধ। এই দুধ এক গ্লাস খান বর, আর এক গ্লাস খান কনে। কী কারণে এই প্রথা? আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকদের মতে, জাফরান মিশ্রিত দুধে থাকে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন। এই প্রোটিন শরীরে থাকা যৌনগ্রন্থিগুলিকে উদ্দীপিত করে। জাফরান শরীরে রক্ত সঞ্চালনের গতি বাড়িয়ে দেয়। তাই তখন যৌনাঙ্গ সক্রিয় হয়। নিঃসৃত হতে শুরু করে যৌন তরল। এর ফলে সেক্স করার ইচ্ছে পৌঁছায় চূড়ান্ত পর্যায়ে। আর জাফরান ও আমন্ড দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে টেস্টস্টেরন এবং ইস্ট্রোজেন ক্ষরণের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়। কামনা মদির হয়ে ওঠে নারী। স্বাভাবিকভাবেই সেক্স করার ইচ্ছে ওঠে তুঙ্গে। সেই কারণেই নবদম্পতিকে দেওয়া হয় জাফরান-মিশ্রিত দুধ।