Amit Shah: ‘কেন প্রতিদিন বিক্ষোভ দেখাবে কংগ্রেস?’, প্রশ্ন শাহের

50

মহানগর ডেস্ক: শুক্রবার মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্ব এবং GST ইস্যুতে প্রতিবাদ জানিয়ে সংসদ চত্বরে কালো জামাকাপড় পরে হাজির হয়েছিলেন কংগ্রেস (Congress) সাংসদরা। যেখানে সামিল হয়েছিলেন রাহুল গান্ধী ও সনিয়া গান্ধীও। প্রসঙ্গে এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah) বলেছেন, হাত শিবির প্রতিবাদের জন্য জেনে বুঝে আজকের এই দিনটিকে বেছে নিয়েছে। কারণ এদিন অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। আজেকের প্রতিবাদের দরুন কংগ্রেস নিজেদের তুষ্টির নীতিকে আরও প্রচার করছে।

বাদল অধিবেশনের শুরুর দিন থেকেই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধীপক্ষ। এরপর আজ শুক্রবার সংসদ চত্বরে কালো জামাকাপড় পরে মোদি নেতৃত্বাধীন সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধীরা। জানা গিয়েছে, দিল্লি পুলিশ আটক করেছিল রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী সহ দলের অন্যান্য নেতৃত্বদের। ৬ আটকে রাখার পর তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এদিকে সংবাদ সংস্থা এএনআইকে আমিত শাহ প্রশ্ন করেছেন, “কেন প্রতিদিন বিক্ষোভ দেখাবে কংগ্রেস?”

শাহের কথায়, ‘তাঁদেরকে দায়িত্বশীল হতে হবে এবং আইন অনুযায়ী সহযোগিতা করতে হবে। অভিযোগের ভিত্তিতে সমস্ত কিছুর তদন্ত চলছে। প্রত্যেকেরই দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিকে সম্মান করা উচিত। আমি মনে করি , এর পিছনে অন্য কোনও মতলব রয়েছে হাত শিবিরের। এদিন কালো জামাকাপড় পরে প্রতিবাদে নেমে অন্য বার্তা দিতে চেয়েছেন তাঁরা’।

প্রসঙ্গে শাহ বলেছেন, ‘আজ এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট কাউকে তলব করেনি বা কাউকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকেনি। কোথাও কোনও অভিযান চালানো হয়নি। তারপরও হঠাৎ করেই হাত শিবির আজকের এই বিক্ষোভের পরিকল্পনা করেছে। কেন প্রতিবাদে নামল তাঁরা, তা বুঝতে পারছি না। যদিওবা এই দিনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, রাম জন্মভূমির ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। ৫৫০ বছরের পুরনো সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধান হয়েছিল। কোথাও কোনও দাঙ্গা-হাঙ্গামা ঘটেনি। কিন্তু আজ কংগ্রেস কালো পোশাক পরে প্রতিবাদে নেমে এই বার্তা দিয়েছে যে, তাঁরা রাম জন্মভূমির ভিত্তি অনুষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে’।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য আজ ইডির পক্ষ থেকে কোনও বিরোধী নেতাকে তলব করা হয়নি বা কারোর বাড়িতে গিয়ে ইডি অভিযান চালায়নি। তাহলে আজকের এই বিক্ষোভ কেন? তাঁর কথায় তুষ্টির নীতিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেস।