লালারসের পরীক্ষা দিতে নারাজ তরুণী, হলুস্থুল বাসে

29
news bengali kolkata

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে চলছে লকডাউন। কোনও ভাবেই যাতে করোনার প্রকোপ না বাড়ে তা নিয়ে তৎপর প্রশাসন। ইতিমধ্যেই করোনা থাবায় কলকাতায় মৃত্যু হয়েছে একজনের। কিন্তু তারপরেও কোভিড ১৯- এ আক্রান্ত কী না তা জানতে নমুনা পরীক্ষায় নারাজ এক বাস যাত্রী।

অবস্থা বেগতিক দেখে এক প্রকার জোর করে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় তাঁকে। এরপরেই বাসযাত্রী ওই মহিলাকে নিয়ে হুলুস্থুল পড়ে যায় হাসপাতালে।

জানা গিয়েছে, লক্ষ্ণৌ থেকে ফিরছিলেন ওই মহিলা। প্রথমে ধানবাদ আসেন, তারপর বরাকর হয়ে ধর্মতলা বাসে চাপেন তিনি। বাসের ড্রাইভারের অভিযোগ, প্রায় ৭ ঘন্টা ধরে বাসে ছিলেন লক্ষ্ণৌ-তে কর্মরত ওই মহিলা। বাসে ওঠা থেকেই ক্রমাগত কাশি হচ্ছিল তাঁর। করোনা আক্রান্ত বলে সন্দেহ হয়েছিল চালকের। এরপরেই ওই সরকারি চালক ধর্মতলা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। অভিযোগ, নমুনা পরীক্ষা চিকিৎসায় নারাজ ছিলেন মহিলা।

এরপরে পুলিশের ও বাস চালকের উদ্যোগে ওই মহিলাকে নিয়ে আসা হয় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে।

অভিযোগ, হাসপাতালে পৌঁছেও বাস থেকে নামতে চাননি ওই মহিলা। ৭ ঘন্টার চেষ্টাতেও নামানো যায়নি ওই মহিলাকে। ছেড়ে দেওয়ার জন্য ওই মহিলা বারবার হাত জোড় করে অনুরোধ করেন চিকিৎ‍সক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, বারবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও ওই মহিলাকে বাস থেকে নামানো যায়নি। কোনওরকম সহযোগিতা করতে চাননি অসুস্থ। টেস্ট তো দূরের কথা বাস থেকে নিচে পা পর্যন্ত রাখেননি তিনি। প্রায় ৮ ঘণ্টা পর অ্যাম্বুলেন্সে করে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। যে বাসে করে তাঁকে আনা হয়েছিল সেই বাসটিক অত্যাধুনিক স্প্রে দিয়ে জীবাণুমুক্ত করা হয়। এই ঘটনায় এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। বেলেঘাটা আইডিতে প্রাথমিক পরীক্ষার পর অসুস্থ মহিলাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তিনি আদৌ করোনা আক্রান্ত কী না তা জানা যায়নি। তবে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে সকলকে সচেতন হতে অনুরোধ করা হয়েছে।