Yuvraj Singh: জাতিবিদ্বেষমূলক মন্তব্যের জেরে গ্রেপ্তার যুবি, পরে মুক্তি জামিনে

43
ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী প্রাক্তন অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং।

মহানগর ডেস্ক: ফের শিরোনামে যুবরাজ সিং। একটা সময় বাইশগজে নিজের পারফরম্যান্স দিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের মাতিয়ে রাখতেন তিনি। আর এখন বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জেরে একাধিকবার চলে আসেন লাইমলাইটে।

জাতিবিদ্বেষমূলক মন্তব্যের জেরে রবিবার হরিয়ানায় হিসারের পুলিশ আধিকারিকরা গ্রেপ্তার করেন যুবিকে। গত বছর রোহিত শর্মার ইনস্টাগ্রামে একটি লাইভ সেশনে এসে যজুবেন্দ্র চাহালের উদ্দেশে জাতিবিদ্বেষমূলক মন্তব্য করেছিলেন ভারতের এই প্রাক্তন অলরাউন্ডার। এরপরই তাঁর নামে মামলা দায়ের করা হয়। তার জেরেই এদিন যুবরাজকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জানা গিয়েছে, কয়েকদিন আগেই এই সংক্রান্ত মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নিয়েছিলেন যুবি। এদিন তাই তদন্তে সাহায্য করতেই হিসারে এসেছিলেন এই বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় ক্রিকেটার। সঙ্গে ছিলেন তাঁর নিরাপত্তারক্ষী এবং আইনজীবী। এরপরই আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে অবশ্য আগাম জামিনের কাগজ-পত্রের ভিত্তিতে তাঁকে ছেড়েও দেওয়া হয়।

রোহিতের সঙ্গে সেই ইনস্টা লাইভে এসে বিতর্কিত মন্তব্য করেন যুবি। অভিযোগ, অন্যান্য ক্রিকেটারকে নিয়ে মশকরা করতে গিয়ে দলিতদের অসম্মান করে বসেন তিনি। জাত-পাত নিয়ে করা মন্তব্যের জেরে কড়া সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছিল তাঁকে। পরে অবশ্য নিজের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছিলেন এই প্রাক্তন বাঁহাতি অলরাউন্ডার। সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি জানিয়েছিলেন, ‍‘আমি কখনও জাত-পাত, বর্ণ কিংবা লিঙ্গের ভেদাভেদে বিশ্বাসী নই। আমি সকল মানুষকে সমানভাবেই দেখি ও তাঁদের উপকার করার চেষ্টা করি। নিঃস্বার্থে একে অপরের পাশে দাঁড়ানোই জীবন।’

যুবির নিঃশর্ত ক্ষমার পরও অবশ্য গলেনি বরফ। গোটা বিষয়টি নিয়ে রাগ পুশে রেখেছিলেন হরিয়ানার বাসিন্দাদের একাংশ। তারই প্রমাণ মিলল এবার। সেই ঘটনার প্রায় আট মাস পর দায়ের হয় এফআইআর। হরিয়ানার হিসারের এক আইনজীবী হাঁসি থানায় এফআইআর করার পাশাপাশি ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫৩, ১৫৩এ, ২৯৫, ৫০৫ ধারায় মামলা রুজু করে যুবরাজের বিরুদ্ধে। তবে শেষ পর্যন্ত আগাম জামিনের সৌজন্যে মুক্তি পেয়ে যাওয়ায় আপাতত স্বস্তির নিঃশ্বাস যুবরাজের পরিবার ও ভক্তকুলে।